মেনু নির্বাচন করুন

গঙ্গা কপোতাক্ষ সেচ প্রকল্প

ভেড়ামারা উপজেলায় অবস্থিত গঙ্গা কপতাক্ষ সেচ প্রকল্প। ভেড়ামারা উপজেলার উত্তরপাশে অবস্থিত।

দেশের বৃহত্তম গঙ্গা-কপোতাক্ষ জি কে সেচ প্রকল্প প্রয়োজনীয় সংস্কার হলে ৪ জেলার ১৩ উপজেলার হাজার হাজার কৃষক চাষাবাদে সুফল পেত। ভাগ্যের উন্নয়ন ঘটত এতদঞ্চলের কৃষক পরিবারের।

কুষ্টিয়া, চুয়াডাঙ্গা, মাগুরা ও ঝিনাইদহ জেলার কৃষির গুণগত মান বৃদ্ধি, স্বল্প ব্যয় এবং অধিক উৎপাদন বাড়ানোর লক্ষ্যে ১৯৫৪ সালে কুষ্টিয়ার ভেড়ামারা পদ্মা নদীর তীরে গঙ্গা কপোতাক্ষ (জি কে) নামের দেশের বৃহত্তম সেচ প্রকল্পটি হাতে নেয়া হয়। ১৯৬৯ সালে এই প্রকল্পের কাজ শেষ হয়। সে সময় প্রকল্পের আওতায় ৪ জেলার ১৩ উপজেলার ৪ লাখ ৮৮ হাজার একর জমি প্রথম পর্যায়ে প্রকল্পের আওতাধীন সব জমিতে সেচ প্রদান করা সম্ভব হলেও পরে পদ্মা নদীতে পানি প্রবাহ কমে যাওয়ায় পাম্পের প্রধান ইনটেক চ্যানেলের মুখে পলি ও বালুচর জমে ওঠে। পানি না থাকায় একে একে ভরাট হয়ে যায় জি কে প্রজেক্টের খালগুলো। পানির অভাবে প্রতি বছর কোটি কোটি টাকা ব্যয়ে ইনটেক চ্যানেল ছাড়াও পদ্মার উজান মুখে ড্রেজিং করে সেচ প্রকল্পটি চালু রাখা হয়। সে কারণে প্রতি বছর হ্রাস পাচ্ছে প্রকল্পটির আওতাধীন জমির পরিমাণ। প্রকল্পটির জমির পরিমাণ এসে দাঁড়িয়েছে ২ লাখ ১৬ হাজার একরে। জি কে সেচ প্রকল্পটির আওতাধীন ৪ জেলার কৃষকদের জমিতে সেচ সরবরাহের লক্ষ্যে সে সময়ই প্রকল্প এলাকায় খনন করা হয় ১৯৩ কিলোমিটার প্রধান সেচ খাল, ৪৬৭ কিলোমিটার শাখা খাল, ৯৯৫ কিলোমিটার উপশাখা খাল, ৯৭১ কিলোমিটার নিষ্কাশন খাল। নির্মাণ করা হয় ২ হাজার ১৮৪টি জলকাঠামো। এই প্রকল্পটি চালু রাখতে প্রতি বছর ব্যয় হচ্ছে ৫০ কোটি টাকা। বিপুল পরিমাণ অর্থ ব্যয়ের পরও প্রকল্প এলাকার অধিকাংশ কৃষক এই সেচ সুবিধা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। প্রকল্পের শাখা-উপশাখা ও নিষ্কাশন খালগুলো পলি ধারা ভরাট হয়ে যাওয়াকে দায়ী করছে কৃষকরা। ফলে নিজেরাই ইঞ্জিনচালিত টিউবওয়েল বসিয়ে জমিতে সেচ দিতে বাধ্য হচ্ছেন। ফলে ব্যাপক আবাদি জমিতে পানির চাহিদা ভূগর্ভস্থ থেকে তুলে জমিতে দেয়াতে পানির স্তর ক্রমে গভীর থেকে গভীরে চলে যাচ্ছে। কিন্তু পানি উন্নয়ন বোর্ডের উদাসীনতার কারণে জি কের অধীনে বিভিন্ন ছোট বড় ক্যানাল খনন কাজ না করায় ভরাট হয়ে গেছে ক্যানেলগুলো। পানি চলাচল না করায় অবৈধ দখলদারদের কারণে বন্ধ হয়ে গেছে ক্যানেলগুলো। ফলে পানির অভাবে থমকে গেছে চাষিদের মাঠের বোরো চাষসহ কয়েক হাজার একর ফসলের আবাদ। এরপরও এ বিভাগটি কৃষি উন্নয়নে ব্যাপক ভূমিকা রেখে চলেছে।

দক্ষ জনবল না থাকায় এবং প্রকল্প কর্তৃপক্ষ তথা পানি উন্নয়ন বোর্ডের কর্মকর্তাদের অবহেলার কারণে প্রকল্পের কাক্সিক্ষত সুবিধা সম্পূর্ণরূপে অর্জিত হচ্ছে না। তবে পরিকল্পনা মাফিক কাজ করলে জি কের আওতাধীন লাখ লাখ কৃষক সেচ সুবিধা পাবে। আবাদ হবে লাখ লাখ হেক্টর জমি।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, চলতি বোরো মৌসুমে কুষ্টিয়া অঞ্চলের মাত্র ৩০ হাজার হেক্টর জমিতে সেচ সুবিধা দেয়ার পরিকল্পনা করলেও খাল ভরাট হওয়ায় তা ব্যাহত হচ্ছে। ফলে জি কে সেচ প্রকল্পের অধীনে ৪ লাখ ৮৮ হাজার একর জমি অনাবাদি থেকে যাচ্ছে। তবে পরিকল্পনা মাফিক জি কে খালের উন্নয়নে কাজ করলে এ প্রকল্প জনগণের দোরগোড়ায় পৌঁছাতে পারে।

প্রকল্পের শুরুতে ‘আমন’ ফসলকে প্রধান ফসল হিসেবে গণ্য করে শুধুমাত্র আমন ও আউসের ওপর গুরুত্ব দেয়া হতো। কিন্তু বর্তমানে পরিস্থিতি পাল্টে গেছে। বর্তমানে বোরো ফসল প্রধান। যুগের সঙ্গে তাল মিলিয়ে প্রকল্পের পরিকল্পনা পরিবর্তন করার দাবি উত্থাপিত হয়ে এসেছে বেশ কয়েক বছর আগে থেকে। অবশেষে প্রকল্প কর্তৃপক্ষের বোধোদয় হয়েছে এবং গত ৩ বছর যাবৎ বোরো মৌসুমেও সেচ সরবরাহ দেয়া হচ্ছে বলে কৃষকদের কাছ থেকে জানা গেছে। কৃষকরা আরো জানিয়েছে, বোরো মৌসুমে পানি সরবরাহ হলেও সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনা এখনো গড়ে ওঠেনি। সঠিক সময়ে সঠিক স্থানসমূহে পানি পাওয়া যাচ্ছে না আবার যেখানে চৈতালী ফসল আছে সেখানে পানি প্রয়োজন না থাকলেও সেখানে সেচ সরবরাহ করা হচ্ছে ফলে চৈতালী ফসলের ক্ষতি হচ্ছে।

এসব অভিযোগ নিয়ে পানি উন্নয়ন বোর্ডের বিভিন্ন কর্মকর্তা ও প্রকল্প পরিচালকের সঙ্গে আলাপকালে জানা যায়, পুরনো এই প্রকল্পটি ষাটের দশকে নির্মাণকাজ শেষ হওয়ার পর মাঝখানে একবার মাত্র সংস্কার কাজ হয়েছে। কিন্তু যদি ১০-১৫ বছর পর পর সংস্কার হয় তাহলে এত সমস্যা থাকে না। সংস্কার না হওয়ার কারণে বিভিন্ন খাল ভরাট, বেদখল, গেটসমূহ অকেজো হওয়ায় প্রকল্পের কার্যকারিতা হ্রাস পেয়েছে।

 

 


Share with :
Facebook Twitter